বাজেট বিগ ডিসপ্লে স্মার্টফোন কম্পারিজন (ft. Hot 10 Play, NF5, Spark 6 Air, Z35)

বর্তমানে বড় ডিসপ্লের ফোনগুলো বাজারে বেশ দাপটের সাথে অবস্থান করছে। একটা সময় 6″ ডিসপ্লেকেও অনেক বড় ডিসপ্লে মনে করা হলেও এখন 6.5″ ডালভাত হয়ে গেছে। এমনকি আরো বড় ডিসপ্লের দিকে ঝুঁকছেন অনেকে। বাজারে 6.8″ বা আরো বড় ডিসপ্লেসহ বেশ কিছু স্মার্টফোন বেশ এন্ট্রি লেভেলেই এখন পাওয়া যাচ্ছে। এরকম চারটি ফোন নিয়ে আমাদের আজকের কম্পারিজন পোস্টটি সাজানো হয়েছে। যাই হোক, এই ফোনগুলো অবশ্যই তাদের জন্য প্রযোজ্য নয়, যারা কমপ্যাক্ট সাইজের একটি ডিভাইস খুঁজছেন।

আমাদের কম্পারিজন তালিকায় Tecno Spark 6 Air-এ থাকছে একটা খুবই হিউজ ডিসপ্লে, যার আকার হলো 7″, অন্যগুলো 6.8″ ডিসপ্লে নিয়ে এসেছে। দামের কথায় আসলে ১০ হাজার টাকার আশেপাশেই আছে স্মার্টফোনগুলো। Symphony Z35 ১০,৪৯০ টাকা (3/32), Infinix Hot 10 Play ১০,৪৯০ টাকা (4/64), Tecno Spark 6 Air ৯,৯৯০ টাকা (3/64) ও Walton Primo NF5 ৯,৬৯৯ টাকা (3/32) দাম নির্ধারিত হয়েছে।

কম্পারিজনে যাওয়ার আগে জানিয়ে রাখা গুরুত্বপূর্ণ বোধ করছি যে ফোনগুলোর কোনটিই আমি ব্যবহার করিনি। আমরা কিন্তু এখানে স্পেক নিয়ে আলোচনা করছি এবং ধরে নিচ্ছি, অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যে তথ্যগুলো আছে, তা সঠিক। বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতা যে শতভাগ মিলবে, এমনটা নিশ্চয়তা দিতে পারছি না।

ডিজাইন

বাজেট ফোনে আর যেদিকেই কমতি থাকুক, ডিজাইনে কোম্পানিগুলো সচারচর এখন আর কমতি রাখতে চায় না। Symphony Z35 আর Infinix Hot 10 Play-র ডিজাইন একই ধরণের, প্যাটার্নে ভিন্নতা থাকছে। আমার কাছে ভালো লেগেছে এদের ডিজাইন। বিভিন্ন কোণ থেকে এটা ভিন্নভাবে আলোর প্রতিফলন ঘটায় বলে একটা প্রাণবন্ত ছোঁয়া আছে এখানে।

এরপর আমি রাখছি Tecno Spark 6 Air। Spark 6 Air-এর একটি ক্লাউড হোয়াইট কালার ভ্যারিয়েন্ট আছে, যেটা আমার ভালো লেগেছে, কেননা এখন হোয়াইট কালার ভ্যারিয়েন্ট কমই চোখে পড়ে। ক্যামেরা মডিউলটির ডিজাইনও সুন্দর। Walton Primo NF5 ডিজাইন তুলনামূলক কম সুন্দর মনে হয়েছে, তবে এটিরও সিম্পল ক্যামেরা মডিউলের ডিজাইন ভালো লেগেছে।

ডিসপ্লে

IPS প্রযুক্তির 6.82″ বিশাল ডিসপ্লে নিয়ে এসেছে NF5, Z35 ও Hot 10 Play। টেকনো এখানে আর এক কাঠি ওপরে গিয়ে 7″ ম্যাসিভ ডিসপ্লে নিয়ে এসেছে। বাজেট রেঞ্জে আমরা যেমনটা দেখে থাকি, HD+ রেজ্যুলেশন দেয়া হয়েছে ফোনগুলোতে এবং প্রস্থের তুলনায় দৈর্ঘ্য কিন্তু এগুলোর একটু বেশি-ই, যেহেতু 20.5:9 অ্যাসপেক্ট রেশিওর 1640*720p ডিসপ্লে রয়েছে ফোনগুলোতে।

এক্সটেরিয়র, ব্যাটারী

বড় ডিসপ্লের স্মার্টফোনে বড় ব্যাটারী আশা করাটা স্বাভাবিক। আর তাই Spark 6 Air, Z35 ও Hot 10 Play সবাই এনেছে 6000mAh ম্যাসিভ ব্যাটারী। তবে বড় ব্যাটারী থাকলে ফোনের ওজন আর থিকনেস একটা প্রশ্ন হয়ে দাঁড়ায়, এক্ষেত্রে থিকনেসের মামলায় দারুণ খেল দেখিয়েছে ইনফিনিক্স, কেননা Hot 10 Play-র থিকনেস মাত্র 8.9mm, যেটা অবশ্যই সুপার স্লিম না, তবে এর বিগ ব্যাটারীর কথা চিন্তা করলে ইমপ্রেসিভ ব্যাপার।

Z35-এর থিকনেস হলো 9.45mm, হয়ত ইনফিনিক্সের মত না, তারপরও ব্যাটারী সাইজ হিসেবে বেশি বলা যায় না। ডিসপ্লে বেশি বড় হওয়ায় দৈর্ঘ্য-প্রস্থে আরেকটু বেশি জায়গা পেয়েছে টেকনো, Spark 6 Air-এর থিকনেস হলো 9.3mm।

আরো একটা জায়গায় ভালো করেছে ইনফিনিক্স, Hot 10 Play-র চিন-বেজেলের পরিমাণ বেশ মিনিমাল। সমান সাইজের ডিসপ্লে নিয়েও Hot 10 Play ও Z35-এর ডাইমেনশন যথাক্রমে 171.82 x 77.96 x 8.90mm ও 173.8 X 78.6 X 9.45mm। আর Spark 6 Air-এ বড় ডিসপ্লে নিয়ে ডাইমেনশন 174.68 x 79.36 x 9.3mm।

কিন্তু যদি ওজনের কথা বলি, ইনফিনিক্স আর টেকনো এদিকটি তাদের ওয়েবসাইটে উল্লেখ করেনি। Z35 অবশ্য উল্লেখ করেছে, 208g, যা কিনা 6000mAh ব্যাটারী হিসেবে বরং লাইটওয়েট-ই।

অন্যদিকে, Walton Primo NF5 কিন্তু ব্যাটারী অনেকটা কম-ই দিয়েছে, 4000mAh। ব্যাটারী কম হলে সাধারণত স্লিমনেস আর ওজনের দিক দিয়ে এডভান্টেজ থাকে, তবে ওয়ালটন মোটেও এখানে তেমনটা দেখাতে পারেনি, কেননা NF5-এর ডাইমেনশন 173.5 X 78.5 X 9.3mm, আর ওজন 202g, ব্যাপারটা দুুঃখজনক।

চার্জিং

এই সেকশনে এসে দারুণ দেখিয়েছে সিম্ফনি। বড় ব্যাটারীর দেখা মিললেও টাইপ সি পোর্ট এন্ট্রি লেভেলে আমাবস্যার চাঁদ আর ফাস্ট চার্জিং তো প্রশ্নই আসে না। কিন্তু Symphony Z35 15W ফাস্ট চার্জিং যুক্ত করে দিয়েছে, আর সাথে টাইপ সি পোর্টও রয়েছে, তাই ডাটা ট্রান্সফারও হবে দ্রুত। 6000mAh ব্যাটারীকে ৩ ঘন্টার আশেপাশে সময়ে চার্জ করতে সক্ষম এর ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি।

ইনফিনিক্স বা টেকনো অবশ্য ফাস্ট চার্জিং বা টাইপ সি পোর্ট কোনটিই দেয়নি। এখানে 10W চার্জার দিয়ে ৪ ঘন্টার কিছু বেশি লাগতে পারে পুরো চার্জ করতে। তবে ওয়ালটন যেটা করেছে, এটা মানা কঠিন, তারা দিয়েছে 7.5W চার্জিং। তাই ব্যাটারী কম হলেও চার্জিং টাইম কিন্তু খুব কম হবে না, হয়ত ৪ ঘন্টার কিছু কম সময় দরকার হতে পারে।

চিপসেট

কিছুদিন আগেও অল্প কিছু ব্র্যান্ড-ই এন্ট্রি লেভেলে চিপসেট সেকশনে গুরুত্ব দিত। তবে এখন দিন বদলেছে, কেননা বেশি থেকে বেশি মানুষ স্মার্টফোনের মধ্যে চিপসেটের দিকটিকে এখন সর্বোচ্চ প্রায়োরিটি দিচ্ছে। Helio G35 বর্তমানে ১০-১১ হাজার টাকায় একটি আদর্শ চিপসেট হয়ে ওঠছে, যা ব্যবহার করেছে Infinix Hot 10 Play ও Symphony Z35।

টেকনো ব্যবহার করেছে Helio A25, যা G35 থেকে কিছুটা পিছিয়ে থাকে। তারপরও এটা ১০ হাজার টাকার নিচে ঠিক আছে। কিন্তু এখানে আরো একবার ওয়ালটন চরম হতাশ করে ব্যবহার করেছে Helio A20। A25 আর G35 অক্টাকোর হলেও A20 কিন্তু কোয়াড কোর, যেটা এই দামে হজম করা একটু কঠিন-ই।

র‌্যাম-রম

আমাদের তালিকায় শুধু Infinix Hot 10 Play 4/64 ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে এসেছে। বেশি র‌্যাম থাকায় মাল্টিটাস্কিংয়ে একটি এডভান্টেজ রয়েছে এখানে। 3/64 ভ্যারিয়েন্টে এসেছে Spark 6 Air, ৯৪৯০ টাকায় এর অবশ্য একটি 2/32 ভ্যারিয়েন্টও আছে, তবে মাত্র ৫০০ টাকার জন্য আমি অবশ্যই সেটি সাজেস্ট করছি না।

অন্যদিকে NF5 ও Z35 3/32 ভ্যারিয়েন্টে এসেছে। 3GB র‌্যাম ঠিক আছে এই দামে, তবে বিশেষ করে Z35-এর দাম অনুযায়ী 64GB স্টোরেজ তারা দিতে পারতো বলে মনে করি। আবার NF5-এর দাম একটু কম হলেও, এই দামে কিন্তু আমরা ওয়ালটনকে 4/64-ও দিতে দেখেছি, সেখানে এবার 3/32 আশাহত করে।

যাহোক, সবগুলো ফোনেরই স্টোরেজ এক্সপেন্ডেবল। Z35 ও NF5 128gb পর্যন্ত মাইক্রোএসডি কার্ড সাপোর্ট করে, Spark 6 Air-এরটি জানতে পারিনি, তবে Hot 10 Play পুরো 512gb পর্যন্ত এক্সপেন্ডেবল!

ক্যামেরা

যদি ক্যামেরার সংখ্যা আপনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়, তবে আমাদের তালিকার তিনটি ফোন ত্রিপল ক্যামেরা নিয়ে এসেছে। তবে অবস্থা এতটাই করুণ, যে ওয়ালটন মেইন ক্যামেরা বাদে বাকি দুটো কোন দুঃখে আছে সেটা ওয়েবসাইটে লিখেওনি। সিম্ফনি 5MP আল্ট্রাওয়াইড Z সিরিজের আগের কিছু ফোনে দিলেও এবার তার বদলে দিয়েছে AI লেন্স, অন্যটি 2MP ডেপথ। টেকনোও সেম অবস্থা, AI আর 2MP ডেপথ। ইনফিনিক্স অবশ্য 2MP ডেপথ ক্যামেরা দেয়নি, তাদের থাকছে ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ।

তো, এখানে মেইন ক্যামেরা বাদে বাকি ক্যামেরাগুলো আসলে ত্রিপল ক্যামেরা ট্যাগলাইন যুক্ত করতেই মূলত সাহায্য করে। প্রাক্টিকালি বিশেষ কাজে লাগে না। তাই সংখ্যার আলাপ রেখে আমরা যদি মেইন ক্যামেরার আলাপে আসি, তাহলে সবারই থাকছে 13MP ক্যামেরা। অবশ্য Z35 আর NF5-এর ক্যামেরাটি f/2.0 অ্যাপার্চারের, যেখানে f/1.8 অ্যাপার্চারের ক্যামেরা দিয়েছে Hot 10 Play আর Spark 6 Air।

সেলফি ক্যামেরাতে সবাই 8MP দিয়েছে। এখানে Hot 10 Play আর Spark 6 Air সেলফি ফ্ল্যাশ ফিচার দিলেও NF5 বা Z35-এ তা থাকছে না। Z35-এ ডিফল্ট ক্যামেরা সফটওয়্যারে সেলফি ক্যামেরা দিয়ে পোট্রেট ছবি তোলা যায় না, যাই হোক, আপনি Google Camera Go ব্যবহার করে তুলতে পারেন।

সত্য যে ক্যামেরা সেকশনে রিয়েল লাইফ এক্সপেরিয়েন্স-ই দিনশেষে কথা বলে, স্পেক নয়। তবে স্পেক থেকে যেটুকু দেখা যায়, তাতে Hot 10 Play আর Spark 6 Air-এর বিশেষ করে লো লাইটে এডভান্টেজ থাকছে লো অ্যাপার্চার মেইন ক্যামেরা ও সেলফি ফ্ল্যাশের জন্য।

সফটওয়্যার

১০ হাজার টাকার আশেপাশে মনে হয় Symphony Z35-এই Android 11 সর্বপ্রথম দেখলাম, আর আমরা জানি যে সিম্ফনির ইউআই মোটামুটি স্টক থাকে। তো লেটেস্ট অ্যান্ড্রয়েডের অনেকটা বিশুদ্ধ স্বাদ নিতে চাইলে Z35 সম্ভবত এই বাজেটে একমাত্র অপশন, সামনে হয়ত অনেক ফোনেই দেখা যাবে। আর ওয়ালটন-ও অলমোস্ট স্টক ইউআই অফার করলেও তারা কিন্তু NF5-এ Android 10-ই অফার করছে।

অন্যদিকে, যদি আপনি কাস্টম ইউআই পছন্দ করেন, সেক্ষেত্রে Hot 10 Play দিচ্ছে ইনফিনিক্সের XOS, আর Spark 6 Air দিচ্ছে টেকনোর HiOS, যেগুলো Android 10-এর ওপর চলছে। যাই হোক, যেহেতু হ্যান্ডস অন এক্সপেরিয়েন্স নেই, সফটওয়্যার সেকশনে কথা আর না বাড়াই।

সেন্সর

আরো একটি জায়গা, যেখানে Hot 10 Play দারুণ করেছে, কেননা জি-সেন্সর, লাইট সেন্সর, প্রক্সিমিটি সেন্সর, ই-কম্পাস আর সফটওয়্যার বেজড জাইরোস্কোপ সবই থাকছে এখানে। যদিও সফটওয়্যার বেজড হওয়ায় জাইরো ডিলে এই ফোনটিতে অনুভব করতে পারেন, তবে আমাদের তালিকার বাকি তিনটি ফোনের কেউই কিন্তু কম্পাস কিংবা জাইরোস্কোপ দেয়নি, যেটা আমার মতে ১০ হাজারের ওপরের ফোনে দেয়া উচিৎ।

শেষ কথা

আমাদের তালিকায় সবচেয়ে কম দামি ফোন ছিলো Walton Primo NF5। কিন্তু দাম যতটা কম, স্পেকের দিকে আরো বেশিই কমতি মনে হয়েছে এই ফোনে। সত্যি বলতে ৯,৬৯৯ টাকায় এটা আমার জাস্টিফাইড মনে হয়নি, এবং সাধারণভাবে আমি এটা সাজেস্ট করতে পারছি না।

যদি আপনি যথাসম্ভব বড় ডিসপ্লে-র দিকেই যেতে চান, তাহলে Tecno Spark 6 Air হয়ত আপনার ভালো লাগতে পারে। তবে সাধারণভাবে, আমার কাছে Infinix Hot 10 Play আর Symphony Z35 বেটার অপশন মনে হয়েছে। ডিজাইন, ব্যাটারী, পারফর্মেন্সে এরা বেশ ভালো।

এর মধ্যে Hot 10 Play-র সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হলো তারা 4/64 দিচ্ছে। আবার এক্সটেরিয়র, সেন্সরের দিকেও তারা ভালো করেছে। কিন্তু বিপরীতে Symphony Z35 দিয়েছে লেটেস্ট অ্যান্ড্রয়েড, আর আরো গুরুত্বপূর্ণ, টাইপ সি পোর্টের সাথে ফাস্ট চার্জিং। বাই দা ওয়ে, Z35 কিনলে একটা টি-শার্টও ফ্রি আছে 🙄

তো, আপনার কাছে কোনটি সবচেয়ে বেশি ভালো মনে হয়েছে? আপনার মতামত জানার অপেক্ষায় রইলাম!

Leave a Reply